বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয়

বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয় এই সম্পর্কে আমরা অনেকে জানি না । বিড়াল কামরালে কি কি ক্ষতি হতে পারে এবং কত দিনের মর্ধে টিকা দিতে হয় আপনি যদি না জানেন তাহলে আপনাকে আমাদের এই পোস্ট এ স্বাগতম । আজকে বিড়াল কামড় এর ফলে কি কি হয় বিড়াল কামড়লে কি করবেন সব কিছু থাকছে আজকের এই পোস্ট এ ।

বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয়আজকের আর্টিক্যাল টি মনোযোগ সহকারে পড়লে বুঝতে পারবেন বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয় সেই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সমুহ । বিড়াল কামড় কে অবহেলা করবেন না কারন এদের মর্ধে এক প্রকার জিবানু থেকে থাকে যা আপনার অনেক ক্ষতি করতে পারে । 

সৃচিপত্রঃ বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয়

  • বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয়
  • বিড়াল কামড়ালে কি রোগ হয়
  • বিড়াল কামড়ালে কয়টি ভ্যাকসিন দিতে হয়
  • বিড়ালের জলাতঙ্ক রোগের লক্ষণ
  • শেষ কথাঃ বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয়

বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয়

বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয় তা হলো বিড়াল কামরালে যে টিকা নিতে হবে তা কিন্ত নয় । অনেক সময় বিড়াল এর সামান্য আচড় এ তেমন কোনো ক্ষতি হয় না । তবে বেশিভাগ ক্ষেত্রে বিড়াল কামড়ালে জলাতঙ্ক রোগ হয়ে থাকে । এবং এই রোগ যদি একবার হয়ে থাকে তাহলে আপনার মৃত্যুর সম্ববনা ১০০% । তাই আপনাকে বিড়াল কুকুর বানর যদি কামড় বা আচড় দেয় তাহলে অব্যশয় আপনার বিশেজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে ।
বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয় তা হলো বিড়াল কামড়ানোর প্রথম ২৪ থেকে ৩৬ ঘণ্টার মর্ধে আপনাকে প্রথম ইনজেকশন নিতে হবে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী । এর পড় আপনাকে ৩ দিন পড় একটা টিকা নিতে হবে এর পড় যথাক্রমে ৭ দিন ১৪ দিন এবং ২৮ দিনের এর অনুয়ায়ী আপনাকে টিকা নিতে হবে । আপনাকে মোট ৭ টি টিকা নিতে হবে বিড়াল কামড় এর হাত থেকে বাচার জন্য । তবে টিকা নিয়ার সময় অব্যশয় ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন । ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া নিজে নিজে কোনো প্রকার ট্রিটমেন্ট করবেন না এটা আপনাদের জন্য গুরুপ্তপুর্ন ।

বিড়াল কামড়ালে কি রোগ হয়

বিড়াল কামড়ালে কি রোগ হয় তা জানতে এই আর্টিক্যাল টি বিস্তারিত পড়ুন । আজকে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব বিড়াল কামড়ালে কি রোগ হয় সেই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য নিয়ে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক বিড়াল কামড়ালে কি রোগ হয় তা নিয়ে ।
বিড়াল কামড়ালে কি রোগ হয় তা হলো বিড়াল কামড়ালে র‍্যাবিস নামক একটা আরএনএ ভাইরাসের ফলে আমাদের শরিলে জলাতঙ্ক রোগ হয়ে থাকে । এই রোগ হয়ে গেলে রোগির বাচার সম্ভবনা অনেক কমে যায় । এক সমিকরন এ দেখা গেছে জলাতঙ্ক রোগের অবস্থান বাংলাদেশেরে তৃতীয় নাম্বারে । বাড়িতে পোশা কুকুর বিড়াল বানর এর আচড় থেকে এই রোগ হয়ে থাকে । 
তাই বাড়িতে কুকুর বিড়াল এর পোষার সময় অব্যশয় খেয়াল রাখবেন যাতে করে আচড় না দিতে পারে । এবং আপনার কুকুর বিড়াল যদি আপনাকে কোনো কারন এ আচড় বা কামড় দিয়ে থাকে তাহলে অব্যশয় ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে । জলাতঙ্ক একটি ভয়াবহ রোগ এর রোগ একজন ব্যাক্তি কে মৃত্যুর দাড় পযন্ত নিয়ে যেতে পারে । এই রোগ হলে রোগির মৃত্যুর সম্ভবনা থাকে ১০০% । তাই বিড়াল বা কুকুড় আচড় বা কামড় দিলে অবহেলা করবেন না । আশা করি বুঝতে পেরেছেন বিড়াল কামড়ালে কি রোগ হয় সেই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সমুহ ।

বিড়াল কামড়ালে কয়টি ভ্যাকসিন দিতে হয়

বিড়াল কামড়ালে কয়টি ভ্যাকসিন দিতে হয় তা হলো বিড়াল বা কুকুর কামড়ালে আমাদের শরিলে জলাতঙ্ক রোগ হয়ে থাকে । এটা একটি মরন ব্যাধি রোগ হিসেবে ধরা হয় । এই রোগ টা খুব আস্তে আস্তে আমাদের শরিলে প্রবেশ করে । এই রোগ টা মুলত কুকুড় বিড়াল এর কামড় এর মার্ধম এ হয়ে থাকে । বিড়াল কামড়ালে কয়টি ভ্যাকসিন দিতে হয় তা হলো ৭ টা ভ্যাকসিন দিতে হবে যথা ক্রমে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ।

বিড়ালের জলাতঙ্ক রোগের লক্ষণ

বিড়ালের জলাতঙ্ক রোগের লক্ষণ অনেক গুলা রয়েছে । আজকে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব বিড়ালের জলাতঙ্ক রোগের লক্ষণ গুলো কি কি সেই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সমুহ । তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক বিড়ালের জলাতঙ্ক রোগের লক্ষণ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সমুহ ।
  • লালা নিঃসরণ- যখন আপনার জলাতঙ্ক রোগ হবে তখন আপনার লালা বের হবে এবং অতিরিক্ত লালা বের হবে । যদি কুকুড় বিড়াল কামড় দেওয়া পড় যদি লালা বের হয় বেশি মাত্রায় তাহলে বুঝতে হবে আপনার জলাতঙ্ক হয়েছে ।
  • গিলতে অসুবিধা- আপনার যদি কোনো খাওয়ার গিলতে অসুবিধা হয় বিশেষ করে পানি জাতিয় খাওয়ার তাহলে আপনার জলাতঙ্ক রোগ হওয়ার সম্ববনা রয়েছে ।
  • পানি থেকে ভয়-জলাঙ্ক রোগ হলে আপনার পানির থেকে অনেক ভয় পাবেন । গিলতে অসুবিধার কারনে আপনি পানি থেকে বেশি মাত্রায় ভয় পাবেন । জলাতঙ্ক রোগের এইটা একটা অন্য রকম লক্ষন হতে পারে ।
  • বিভ্রান্তি অনিদ্রা – এ সময় আপনি কোনো বিষয় নিয়ে সব সময় ভয়ে থাকবে । এবং আপনাকে অজানা কোনো কিছু তাড়া করে বেড়াবে । এবং আপনি কোনো কিছু তে মনোনিবেশ করতে পারবেন না এ ছাড়া আপনার ঘুমের স্যামসা হতে পারে । ঘুম ভালো মতো হবে না এবং আপনার আংশিক পক্ষাঘাত এবং কখবো কখনো কোমড় ব্যাথা হতে পারে ।
আশা করি বুঝত পেরেছেন বিড়ালের জলাতঙ্ক রোগের লক্ষণ কি সেই সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সমুহ । জলাতঙ্ক একটি ভয়াবহ রোগ তাই আপনি সব সময় লক্ষ রাখবেন যেনো আপনার উপর এই রোগ আক্রান্ত না করতে পারে । কুকুড় বিড়াল কামড় দিলে যত দুত সম্ভব ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন ।

শেষ কথাঃ বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয়

বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয় সেই সম্পর্কে আজকে আমি আপনাদের সাথে বিস্তারিত আলোচনা করলাম । আজকের পোস্ট থেকে জলাতঙ্ক রোগ এবং প্রতিরোধ সম্পর্কে আপ্নারা বিস্তারিত জানতে পেরেছেন । আজকের এই পোস্ট টিতে কুকুর বিড়াল কামড় দিলে করনীয় কি সেই সম্পর্কে জানতে পারলে ।
আশা করি এই পোস্ট টি আপনাদের জন্য অনেক গুরুপ্তপুর্ন ছিলো । এই পোস্ট টি পড়ে যদি উপকার পেয়ে থাকেন তাহলে অব্যশয় বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন । এবং এমন তথ্য মূলক পোস্ট পেতে আমাদের সাথেই থাকবেন ধন্যবাদ ।

Leave a Comment