হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথা হোমিও ঔষধ সম্পর্কে

প্রিয় পাঠক আপনাদের অনেকের জানা নেই হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথা হোমিও ঔষধ সেই সম্পর্কে বিস্তারিত। তাই আপনার ও যদি এমন প্রশ্ন থাকে তাহলে আমার আজকের এই আর্টিকেলটি মন দিয়ে পড়ুন। কেননা আমার আজকের এই আর্টিকেল এর মূল বিষয় হলো হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথা হোমিও ঔষধ কি সেই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা। তো আপনার মূল্যবান সময় নষ্ট না করে চলুন শুরু করা যাক হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথা হোমিও ঔষধ সম্পর্কে।
হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথা হোমিও ঔষধ

আমার এই আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়লে আপনি আরো ভালো করে জানতে পারবেন হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথার হোমিও ঔষধ সম্পর্কে। 

পেজ সূচিপত্রঃ হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথা হোমিও ঔষধ সম্পর্কে

  • হাটুর জয়েন্টে ব্যথার কারণ
  • হাটুর জয়েন্টে ব্যথা ঔষধ
  • পায়ের শিরায় ব্যাথা কি 
  • হাটুর জয়েন্টে ব্যথার ঘরোয়া চিকিৎসা
  • শেষ কথা হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথা হোমিও ঔষধ

হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথার কারণ 

বর্তমানে আমাদের দেশে বয়স্ক ব্যক্তিদের মধ্যে হাটু ও জয়েন্টে ব্যথা খুবই প্রচলিত একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। হাঁটুর জয়েন্টে ব্যথা বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে। হাঁটু জয়েন্টে ব্যথা দিন দিন বৃদ্ধি পেয়ে চলেছে। সাধারণত হাঁটুর জয়েন্টে ব্যথা হয়ে থাকে। যেমন ঃবাতজনিত, আঘাত জনিত এবং ক্ষয়জনিত কারণে এ জয়েন্টে ব্যথা হয়ে থাকে।
মূলত আঘাত জনিত ব্যথা খেলাধুলার সময় ইনজুরি বা কোন দুর্ঘটনায় লিগামেন্ট এর আঘাত থেকে হাঁটু ও জয়েন্টে ব্যথা হতে থাকে। তবে আঘাত জনিত এবং বাত জনিত ব্যথা যে কোনো বয়সের মানুষদেরই হতে পারে। তবে ক্ষয়চলিত ব্যাথা হলে ৪০ বছরের ভেতরে বেশি দেখা যায়। প্রথম আলো এবং এসকেএফের অফিসিয়াল ফেসবুকে পেজে সম্প্রচার করা হয়েছে 29 নভেম্বর।
সেই অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজের অর্থোপেডিক বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডক্টর মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম এবং অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনের দায়িত্ব ছিলেন ডক্টর বিলকিস ফাতেমা।

হাঁটুর জয়েন্টে ব্যথার ঔষধ

হাঁটুর ব্যথা সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চাইলে আপনি ও এই ঔষধ গুলো ব্যবহার করতে পারেন। তবে এই ওষুধগুলো বয়স অনুসারে নির্ধারণ করা হয়। তবে আপনি অবশ্যই চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ নিয়ে ঔষধ গ্রহণ করবেন। নিচে ঔষধ গুলোর তালিকা দেওয়া হলোঃ
  1. এফেনাক
  2. ক্লোফেনাক
  3. ক্যালবো-ডি Table
  4. Acical-D Tablet
  5. Neso Tablet
তবে আপনি এই ঔষধ সেবনের আগে অবশ্যই চিকিৎসকে পরামর্শ নিবেন। কারণ সব ধরনের ব্যাথার ঔষধ স্বাস্থোর জন্য উপকারী না। 

পায়ের শিরায় ব্যাথার কি

শিরায় ব্যাথা এমন একটি অবস্থাকে বোঝায় যেখানে স্নায়ু কলার আঘাত বা ক্ষতির ফলে ব্যাথা সৃষ্টি হয়ে। এটি শরীরে ব্যাথার অনুভূতি গ্রাহক অঙ্গে ভুল বা অস্বাভাবিক সংকেত পাঠিয়ে যেই অংশ আঘাত প্রাপ্ত হয় নাই সেই অংশকে ব্যাথার অনুভূতি সৃষ্টি করে। এই শিরায় ব্যাথা হওয়া অনেক ক্ষতি কর। কিন্তু এই শিরায় ব্যাথা রোগীর জীবন যাত্রার গুন গত মান কমিয়ে দেয়। বর্তমানে সারা বিশ্বে এই রোগীর মান দেখা যায় ৭-৮% ব্যক্তি। 
আপনাদের অনেকের পায়ের শিরা দেখা যায়। এই পায়ের শিরা দেখা দেখা যাওয়াকে আপনার ত্বকের ফর্সা বা উজ্জ্বলতা মনে করবেন না। পায়েল এরূপ ফুলে যাওয়া শিরাকে ভেরি কোজ শিরা বলা হয়ে থাকে। ছোটবেলায় এই শিরা গুলো নিয়ে তেমন সমস্যা হয় না। তবে বয়স বাড়ার সাথে সাথে সমস্যা দেখা দিতে পারে। যদি আপনার শিরায় নীলচে ভাব দেখা যায়। 
তাহলে এটা উপেক্ষা করবেন না। পায়ে সাধারণত ভেরি কোজ শিরা হয়ে থাকে। এই শিরা প্রথমদিকে পায়ের আঙ্গুলে হয়ে থাকে পরবর্তীতে হাটুতে এবং উরুতে ও এই দৃশ্যটি দেখা যায়। যাদের পায়ে বেশি চাপ পড়ে তাদের এই সমস্যা দেখা দেয়। এই শিরা তুলনায় প্যাঁচানো এবং বড় হয়ে থাকে। যার ফলে এই সমস্যা পায়ে বেশি উপলব্ধি করা যায়।
এই উক্তিটি দিয়েছেন আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞ রেখা রাধামনি।

হাটুর জয়েন্টে ব্যথার ঘরোয়া চিকিৎসা

আপনাকে অবশ্যই হাঁটু জায়েন্টে ব্যথা কমানোর জন্য আপনার ওজন কমানো অত্যন্ত জরুরি। আপনার অতিরিক্ত ওজনের জন্য হাটুর উপরে অনেক প্রেসার পড়ে যার ফলে এই সমস্যাগুলো হয়ে থাকে। আমি ক্ষেত্রে দেখা গেছে এই রোগে বৃদ্ধ বয়সী ব্যক্তিরাই বেশি আক্রান্ত হয়েছে।আবার শিশু ও কিশোর রাও এ রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তাই আমরা সব সময় এলোপ্যাথিক ঔষধ ব্যবহার না করে হোমিও ঔষধ অথবা ঘরোয়া উপায়ে এই রোগ প্রতিরোধ করতে পারে। চলুন জেনে আসি হাটুর জয়েন্টে ব্যথার জয়েন্টে ব্যথায় কিছু ঘরোয়া চিকিৎসা।

  • প্রথমে আপনি তিন থেকে চার টুকরো বরফ দেওয়ালের সাথে ভালোভাবে জড়িয়ে ব্যথা প্রাপ্ত স্থানে ধরুন। এতে করে আপনার ব্যথাটা অনেকটাই কমে যাবে। এছাড়াও আপনি আইস ব্যাক ব্যবহার করতে পারেন। তবে অবশ্যই আপনাকে সেই স্থানে ১০ থেকে ১৫ মিনিট বরফ দিয়ে রাখতে হবে।
  • আপনি হলুদের গুঁড়া, আখরোকের গুড়া, এক চামচ বাদাম এবং এবং দুই কাপ দুধের সঙ্গে এটা ভালোভাবে মিশ্রণ করে নিন তবে অবশ্যই এটি ফুটিয়ে নিবেন। একটানা দুই মাস এইভাবে দুধ খেতে হবে।
  • এছাড়াও আপনি কর্পূরের তেল ব্যবহার করতে পারেন। এক চামচ নারকেল এর তেল নিন এবং কর্পূরের গুরো নিয়ে ভালোভাবে গরম করতে হবে। অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে এটি যেন বেশি গরম না হয়ে যায়। এরপর আপনার জয়েন্টের যে স্থানে ব্যথা সেই স্থানে ভালোভাবে মালিশ করুন। এক সপ্তাহে অবশ্যই তিন থেকে চার দিন ব্যবহার করবেন।
  • তুলসির রস এই ক্ষেত্রে অনেক কার্যকারী একটি উপকারী। এর মধ্যে রয়েছে এ্যান্টি-ব্যাটেরিয়াল,এন্টি-অক্যিডেন্ট অনেক গুণ। 

শেষ কথা – হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথা হোমিও ঔষধ

প্রিয় পাঠক আপনারা এতক্ষণ পড়ছিলেন হাঁটুর জয়েন্টে ব্যাথা হোমিও ঔষধ সম্পর্কে।আসা করি আমার আজকের এই প্রোস্টটি পড়ে আপনার উপকারে আসবে। আমার এই পোস্টটি যদি আপনার ভালো লাগে তাহলে আপনার বন্ধুদের কাছে শেয়ার করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ হাঁটুর ব্যাথা সারানোর ঘরোয়া উপায় 

আর যদি নতুন কোনো বিষয়ে তথ্য জানতে চান তাহলে আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন। এতক্ষণ আমার এই পোষ্টটি পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবান। 

Leave a Comment