পেটের মেদ কমানোর ডায়েট চার্ট

আসসালামুয়ালাইকুম প্রিয় বন্ধুরা পেটের মেদ কমানোর ডায়েট চার্ট জানতে হলে এই গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেলটি আপনার জন্য আমাদের মধ্যে অনেকে আছে যারা এ বিষয়টি সম্পর্কে জানেনা।আমাদের আজকের এই আর্টিকেলের মূল আলোচ্য বিষয় হলো পেটের মেদ কমানোর ডায়েট চার্ট সেই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা।

পেটের মেদ কমানোর ডায়েট চার্ট

আপনার মূল্যবান সময় নষ্ট না করে শুরু করা যাক আমাদের আলোচনা আমাদের আলোচনার মূল আলোচ্য বিষয় পেটের মেদ কমানোর ডায়েট চার্ট এ সম্পর্কে বিস্তারিত ।আমার আজকের এই পোস্টটি শেষ পর্যন্ত পড়লে আপনি জানতে পারবেন পেটের মেদ কমানোর ডায়েট চার্ট সম্পর্কে সম্পূর্ণ বিস্তারিত তাই শেষ পর্যন্ত পড়ার অনুরোধ রইলো।

সূচিপত্রঃ পেটের মেদ কমানোর ডায়েট চার্ট

  • পেটের মেদ কমানোর ডায়েট চার্ট
  • মহিলাদের পেটের মেদ কমানোর উপায়
  • ৭ দিনে পেটের মেদ কমানোর উপায়
  • তল পেটের চর্বি কমানোর উপায়
  • ৩ দিনে পেটের মেদ কমানোর উপায়

পেটের মেদ কমানোর ডায়েট চার্ট

আপনারা সহজে খাদ্যাভ্যাস এবং জীবনধারা পরিবর্তন করে পেটের চর্বি কমাতে পারবেন। উচ্চমানের ফাইবার-যুক্ত খাবার যেমন গমের ভুসি, ওট ব্রান এবং সোর্ঘাম খাওয়ার ফলে  পেটের চর্বি কমাতে সাহায্য করতে পারে।আমরা আপনাকে এমনই এক সহজ ডায়েট প্ল্যানের কথা জানাব  যা আপনাকে পেটের চর্বি কমাতে সাহায্য করবে। পেটের চর্বি কমানো সহজ কাজ নয় আবার  অসম্ভবও নয়।চেষ্টা করলে মেদ কমানো যাই।

অনেকে শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য স্বাস্থ্য সচেতনরা কতকিছুই না করে থাকেন। আপনারা বিশেষ করে পরিমিত পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করলে ডায়েট কন্ট্রোল করা যাবে। আপনাদের শরীরের বাড়তি ওজন ঝেড়ে ফেলতে ওজন কমানোর ডায়ট বেশি  কার্যকর। ডায়েট করতে হবে নিয়মকানুন মেনে, জেনে-বুঝে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী। তানাহোলে কাঙ্ক্ষিত সুফল যেমন পাওয়া যাবে না, তেমনি ওজন কমাতে গিয়ে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন।

প্রথমেই আপনাকে মনে রাখতে হবে ডায়েট মানেই না খেয়ে থাকা নয়। ডায়েট মানে পরিমিত পরিমাণ মত নিয়ম মেনে খাবার গ্রহণ। তাই শরীরের ওজন উচ্চতা দেখে খাবার তালিকা বা চার্ট তৈরি করতে হবে।এবং সেই মত খাবার সাথে ব্যায়াম করতে হবে।মেদ কমানোর ১ম উপায় নিয়মিত বেয়াম।তাই মেদ কমাতে যারা চান ব্যায়াম তাদের জন্য নিয়মিত করতে হবে।শরবত, কোকা-কোলা, ফান্টা ইত্যাদি পানীয়, সব রকম মিষ্টি, তেলে ভাজা খাবার,  মাংস, তৈলাক্ত মাছ, বাদাম,চর্বিযুক্ত শুকনা ফল,মাখন,  ঘি, সর ইত্যাদি পরিহার করা দরকার ।

খাদ্য উপাদান এর মধ্যে  শর্করা ও চর্বি জাতীয় খাদ্য ক্যালরির প্রধান উৎস। অধিক চর্বিযুক্ত কম ক্যালরির খাদ্যে মোটা ব্যক্তির ওজন খুব দ্রুত কমে।দুধ ছাড়া চা বা কফি, এক বাটি সবজি সিদ্ধ দুটো রুটি, কাঁচা শসা। শসা মেদ কমাতে ও ওজন কমাতে ভাল কাজ করে। দুপুরে খাবার আগে একটি ডিমের সাদা অংশ ও টক জাতীয় ফল খেতে পারেন।রাত এ টকদই দিয়ে এক বাটি সালাদ খেতে পারেন।

মহিলাদের পেটের মেদ কমানোর উপায়

মহিলাদের পেটের বাড়তি মেদ কমানোর প্রধান উপায় হল স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া। শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণে  প্রোটিন ও ফাইবার না গেলে ওজন বাড়বে তবুও কমবে না। তাই ইচ্ছে করলেই বাইরের ভাজাভুজির বদলে ফল, বাদাম, ডিম, সবুজ শাকসব্জি বেশি করে খেতে পারেন । উচ্চ ফাইবার, কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ খাবার রক্তে শর্করার মাত্রা বজায় রেখে ওজন কমাতে সাহায্য করে তাই পেট এর মেদ কমাতে চাইলে এই সব খাবার খাইতে পারেন।

 খাবারের মধ্যে পরিবর্তন আনলে পেটের মেদ কমাতে আলাদা করে ব্যায়াম করার দরকার হবে না। শুধু খাবার কম খেলেই ডায়ট করা যাই না।মানসিক চিন্তাতেও মেদ বারে বা সঠিক মাত্রা হারিয়ে যাই। অনেক পানি পান এর ফলে মেদ কমানো সম্ভব।একজন মানুষ এর প্রতিদিন ৬ থেকে ৭ গ্লাস পানি পান করা দরকার।এতে মেদ অনেক কমে যাই। মানসিক চাপ কমানর ফলে অনেক টা মেদ কমতে পারে।তাই নিয়মিত খেলাধুলা বা বন্ধু দের সাথে আড্ডা দিতে পারেন।

৭ দিনে পেটের মেদ কমানোর উপায়

যারা অল্প সময়ের মধ্যে মেদ কমাতে চান তারা গ্রিন টি খেতে পারেন সাথে কাঁচামরিচ খেতে পারেন। এটা ভিটামিন সি যার ফলে আপনার মেদকে কমিয়ে আনবে. গ্রিন টি খাওয়ার ফলে আপনার ওজন আস্তে আস্তে কমে আসবে.। ক্যাপসিকামও এক ধরনের কাঁচামরিচের অন্তর্ভুক্ত এটি খেলেও আপনার মেদ কমতে পারে।

আরো পড়ুনঃ অতি পুষ্টি লক্ষণ কি

এইগুলো শুধুমাত্র যারা সাত দিনের মধ্যে মেদ কমাতে চান তাদের জন্য প্রযোজ্য তারা ট্রাই করতে পারেন। আর পর্যাপ্ত পানি খেতে হবে পানি খেলে মেদ কমে যাবে অনেক ।এছাড়াও খেতে পারেন আদা চা, লিন মিট।লিনমিট তৈরি করতে মাংস সিদ্ধ করে পানি ফেলে দিলেই হবে । এছাড়াও খাইতে পারেন সাবুদানা। লেবু পানিও খেতে পারেন।

তল পেটের চর্বি কমানোর উপায়

তলপেটের মেদ কমানোর জন্য ইয়োগা ব্যায়াম করতে পারেন। এটা আপনার তলপেটে চর্বি কমে যাবে শুধু ইয়োগায় নয় সাথে অনেকগুলো ব্যায়াম যেমন আপনি পুশআপ  পুল আপ  করতে পারেন। দড়ি লাফ দিতে পারেন। এভাবে এক সপ্তাহ  করতে থাকেন আপনার তলপেট কমে যাবে। তাড়াতাড়ি তলপেটের চর্বি  কমানোর জন্য অবশ্যই আপনাকে প্রতিদিন ৫০০ থেকে ৬০০ ক্যালোরি ক্ষয় করতে হবে।

আরো পড়ুনঃ কোষ্ঠকাঠিন্য ইসবগুলের ভুষি খাওয়ার নিয়ম

এছাড়াও ব্যায়াম বাদে আপনি ঘরোয়া কিছু উপায়ে পেটের চর্বি কমাতে পারেন। যেমন এক টুকরা রসুনের সাথে এক গ্লাস পানির মধ্যে পাতি লেবুর রস মিশ্রন করে খেতে পারেন এটি খুবই কার্যকরী পদ্ধতি। এই  শরবত মিষ্টি করার জন্য মধু ব্যবহার করতে পারেন কিন্তু চিনি ব্যবহার করতে পারবেন না।

৩ দিনে পেটের মেদ কমানোর উপায়

পেট কমানোর জন্য ঘরোয়া কিছু উপায় রয়েছে। যেমন অধিক না খাওয়া অল্প অল্প করে দিনে তিন থেকে চারবার খাওয়া। তবে খেয়াল রাখতে হবে যেন বেশি না হয়ে যায় খাবার। ভাতের থেকে ফল খাওয়ার পরিমাণটা বেশি রাখতে হবে। গলা শুকিয়ে গেলে পানির সাথে পেয়ারা বা রসালো কোন ফল খেতে পারেন। তবে সফট ড্রিঙ্কস খেতে পারবেন না। তরকারিতে ঝোল কিংবা আলু বাদ দিতে হবে। তেলে ভাজা খাবার খাওয়া যাবে না মাছ মাংস থেকে শাক সবজি বেশি খেতে হবে।

আরো পড়ুনঃ  কি খেলে খাবার তাড়াতাড়ি হজম হয়

আশা করছি বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনারা জানতে পারলেন যে কিভাবে অল্প সময়ের মধ্যে পেটের চর্বি কমানো যায়।

Leave a Comment